গ্রাম-বাংলা

ঝিনাইদহ পৌর এলাকার ভূটিয়ারগাতী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশেই একটি গ্যাস সিলিন্ডারের গুদাম, এ নিয়ে আতঙ্কে রয়েছে শিক্ষার্থীরা ও অভিভাবকরা

নাগেশ্বরীতে কলা চাষে স্বাবলম্বী শতাধিক পরিবার

নাগেশ্বরী, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে চরের বুকে কলা চাষ করে সাবলম্বী হয়েছে শতাধিক পরিবার। উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের ওয়াপদাবাজার সংলগড়ব দুধকুমর নদীর চরের বুকে কলাবাগান করে সাবলম্বী হয়েছে এসব পরিবার। পরিত্যাক্ত বালুচর এখন কলা বাগান নামেই বেশ পরিচিত। উপজেলা কৃষি অফিস জানায়, এ বছর উপজেলার বামনডাঙ্গা বেরুবাড়ি, রায়গঞ্জ, কচাকাটা, বল্লভেরখাস, কালিগঞ্জ, ভিতরবন্দসহ অন্যান্য ইউনিয়ন মিলে প্রায় ১শ ৬৫ একর জমিতে মেহের সাগর, সবরি ও অন্যান্য জাতের কলার চাষ হয়েছে। তারা কৃষকদের মাঝে গিয়ে বিভিনড়বভাবে পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতাও করছেন। এছাড়াও রায়গঞ্জ ইউনিয়নের দামালগ্রাম এলাকায় ১ বিঘা জমিতে কলার প্রদর্শনী দিয়েছেন বলেও জানান তারা। রফিকুল ইসলাম নামের এক কলাচাষি জানায় ৩ বছর আগে পরিত্যাক্ত ২৫ বিঘা বালুচরে কলাবাগান করেন তিনি। এতে খরচ পুশিয়ে প্রতিবছর তার লাভ হয়েছে ৮ থেকে ১০ লাখ টাকা। চলতি বছরে বন্যার ক্ষতি পুশিয়েও তার লাভ হয়েছে ৮ লাখ টাকা। তার কলাচাষে উৎসাহী হয়ে আশপাশের অনেকেই কলাচাষে আগ্রহী হয়েছেন। ইউসুফ আলী নামের আরেক কৃষক জানায় তারা কয়েকজন কৃষক মিলে এই চরাঞ্চলে প্রায় ১শ ৫০ বিঘা জমিতে ৬০ হাজারের উপর কলার চারা লাগিয়েছেন। এসব বাগান থেকে গত বছরেই বিμি করেছেন প্রায় অর্ধকোটি টাকার কলা। এ বছর বৈশাখ মাস থেকেই কলার ছড়ি কেটে বিμি শুরু করেছেন তারা। দিনে কাটছেন ৩শ থেকে ৪শ কলার ছড়ি। এসব কলা নিয়ে যাচ্ছে বিভিনড়ব এলাকা থেকে আসা পাইকার ও আরতদাররা। স্থানীয় পুষ্টির চাহিদা মিটিয়ে এসব কলা এখন যাচ্ছে দেশের বিভিনড়ব জেলায়। একদিকে যেমন কলা বিμি করছেন অপরদিকে জমি খালি হওয়ায় সাথে সাথে জমি চাষযোগ্য করে নতুন করে কলার চারা লাগাচ্ছেন। এছাড়াও কিছু বাগানের নতুন করে বের হচ্ছে কলার ছড়ি। এসব কলাবাগানে কাজ করে রুজি-রোজগারের ব্যবস্থাও হয়েছে শতাধিক কৃষি শ্রমিকের। এমনকী কলাবাগান করে বেকার যুবকরা আত্মকর্মী হয়ে উঠেছে। কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে তাদের। ফলে আশেপাশের লোকজনও কলা চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা। তবে কৃষকরা মনে করছেন সরকারি বা বেসরকারি কোনো অর্থ সহায়তা পেলে আরো বড় আকারে কলাবাগান করার উদ্যোগ গ্রহণ করবেন তারা। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. শামসুজ্জামান বলেন, দুধকুমর নদীর দু’ধারের চরাঞ্চলে কলা চাষ আর্থ সামাজিক উনড়বয়নে ব্যাপক ভুমিকা রাখছে। আমরা কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে কলা চাষিদের পরামর্শ ও সহযোগিতা করে আসছি।


আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ : তালিকায় পাইকগাছা পৌর মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর

পাইকগাছা, খুলনা প্রতিনিধি : দলের কেন্দ্রীয় কমিটির তৈরি করা ‘অনুপ্রবেশকারী তালিকা’ নিয়ে খুলনা আওয়ামী লীগে টানাপড়েন শুরু হয়েছে। অনেক নেতাই বিস্মিত হয়েছেন তালিকা দেখে। অনেকে এ নিয়ে মন্তব্য করতে না চাইলেও দু-একজন মুখ খুলেছেন, তবে সতর্কভাবে। কেউ কেউ বলেছেন, অনুপ্রবেশকারী তালিকা নিয়ে তাঁরা কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সঙ্গে কথা বলবেন, তবে সব কিছু নির্ভর করছে পরিস্থিতির ওপর। এখন সবাই পরিস্থিতির ওপর সতর্ক দৃষ্টি রাখছেন। জেলার অনুপ্রবেশকারী তালিকায় পাইকগাছা পৌর মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীরের নাম থাকায় সবচেয়ে বেশি অস্বস্তিতে পড়েছেন দলের নেতাকর্মীরা। একাধিক নেতাকর্মীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সেলিম জাহাঙ্গীর ইসলামি ছাত্রশিবিরের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। তাঁর মা এখনো জামায়াতে ইসলামীর পাইকগাছা শাখা কমিটির রুকন। ২০০৮ সালের ২৭ ডিসেম্বর পাইকগাছা শহীদ মিনারের পাদদেশে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের জনসভায় সেলিম জাহাঙ্গীরসহ একাধিক ব্যক্তি আনুষ্ঠানকিভাবে দলে যোগ দেন। এসব নেতার প্রশড়ব, তিনি কী করে অনুপ্রবেশকারী হলেন? তিনি তো লুকিয়ে কোনো নেতার হাত ধরে আচমকা আওয়ামী লীগার বনে যাননি!


পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নববী শান্তিপূর্ণ ভাবে উদযাপনের লক্ষ্যে চট্টগ্রামে মেট্রোপলিটন পুলিশের আয়োজনে মতনিবিময় সভা অনুষ্ঠিত

ঝালকাঠিতে স্বেচ্ছাশ্রমে কবরস্থান পরিস্কার, প্রসংশিত উদ্যোগ

রাজাপুর, ঝালকাঠী প্রতিনিধি : ঝালকাঠিতে স্বেচ্ছায় কবরস্থানের ময়লা-আবর্জনা ও জঙ্গল পরিস্কারপরি” ছনড়বতার কাজ শুরু করেছে কয়েকজন যুবক। স্বেচ্ছাসেবী যুবকদের এমন কার্যμম বিভিনড়ব মহলে প্রশংসা কুড়িয়েছে। শহরের মুসলিম কবরস্থানের দুই একর জমির প্রায় ১০ হাজার কবর পরিস্কার-পরিচ্ছনড়বতার কাজ করছে তাঁরা। এতে এক মাস সময় লাগবে বলে জানিয়েছে স্বেচ্ছাসেবী যুবকরা। স্থানীয়রা জানায়, ঝালকাঠি শহরের একমাত্র মুসলিম কবরস্থানটি বর্ষা মৌসুমে পানি জমে ঘাস ও লতাপাতায় ছেয়ে যায়। ময়লা-আবর্জনার সাথে ঝোপ-ঝাড়-জঙ্গলে পরিনত হয় কবরস্থানটি। মৃত ব্যক্তিদের কবর দেওয়ার পরিবেশও নষ্ট হয়ে যাচ্ছিল। এ অবস্থা দেখে স্থানীয় আসিফ ইকবাল চঞ্চল, সাগর হালদার এবং মিজান রহমান নামের তিন যুবক স্বেচ্ছায় কবরস্থান পরিষ্কার-পরিচ্ছনড়বতার কাজ শুরু করেন। তাদের দেখে উদ্বুদ্ধ হয়ে ১০-১২ জন যুবক প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নিরলসভাবে কবরস্থান পরিস্কারের কাজ করে যাচ্ছে। এ কাজ শেষ করতে এক মাস সময় লাগবে বলে জানিয়েছে যুবকরা। কোন চাঁদা কিংবা কারো সহায়তায় নয়, নিজেরাই স্বেচ্ছাশ্রমে কবরস্থান পরিস্কার করছেন বলে তারা জানান। সেচ্ছাসেবী যুবক সাগর হালদার বলেন, আমি হতে পারি হিন্দু ধর্মের, কিন্তু সেটা আমার কাছে বড় বিষয় নয়; আমি মানব সেবায় কোন ধর্ম বর্ণ বিবেচনা করি না। আমি সবসময় মনে করি আমরা সবাই মানুষ আর মানব সেবার মাধ্যমেই সৃষ্টিকর্তাকে পাওয়া যায় বলে আমি বিশ্বাষ করি। তাই কোন ধর্ম বর্ণের ভেদাভেদ চিন্তা না করে আমরা মুসলিম কবরস্থানের আবর্জনা পরিস্কার করছি। আসিফ ইকবাল চঞ্চল বলেন, আমরা সমাজের অনেক সমস্যার সমাধানে কতৃপক্ষের অপেক্ষায় থাকি। কিন্তু আমরা যদি একটু চিন্তা করে তাদের দিকে না তাকিয়ে নিজেদের উদ্যোগে কাজ করি, তাহলে সেই সকল সমস্যাও দ্রুত সমাধান হতে পারে। আর এই চিন্তা ধারার বহিপ্রকাশ ও বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আমাদের এ পদক্ষেপ। ঝালকাঠি পৌরসভার মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদার বলেন, আমরা পৌরসভার পক্ষ থেকে বিভিনড়ব সময় কবরস্থান পরিস্কার করে থাকি। বৃষ্টির মৌসুমের পরে স্থানীয় কয়েকজন যুবক নিজেরাই কবরস্থান পরিস্কার-পরিচ্ছনেড়বর জন্য আগ্রহ প্রকাশ করলে, আমি তাদের কাজে সমর্থন দিয়েছি। ওরা সেচ্ছাশ্রমে একটি ভাল কাজ করে যাচ্ছে।


পুলিশ কনস্টেবলকে জেলহাজতে প্রেরণ

বরিশাল প্রতিনিধি : ফেসবুকে পরিচয়ের সূত্রধরে অপরের স্ত্রীকে ভাগিয়ে নিয়ে বিয়ে করার মামলায় এক পুলিশ কনস্টেবলকে জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। মঙ্গলবার সকালে বরিশালের মেট্রোপলিটন আমলী-৪ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক শামীম আহমেদ ওই নির্দেশ দিয়েছেন। আদালত সূত্রে জানা গেছে, মামলার বাদি আসামিদের বিরুদ্ধে গত ১১ সেপ্টেম্বর একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামিরা হচ্ছেন ভোলার বোরহানউদ্দিন থানার পুলিশ কনস্টেবল এইচএম রায়হান রাফী ও বাদীর স্ত্রী সুমনা ইসলাম সোমা। এজাহারে জানা গেছে, নগরীর বটতলা এলাকার কামাল হোসেন মামলায় উল্লেখ করেন, ২০১৫ সনের ১২ জুন বটতলার রাজু মিয়ার পুল এলাকার বাসিন্দা মৃত রাজু আহম্মেদের কন্যা সুমনা ইসলাম সোমার সাথে সামাজিকভাবে তার (কামাল হোসেন) বিয়ে হয়।

গর্বের বাকেরগঞ্জের কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটি গঠিত

বাকেরগঞ্জ, বরিশাল প্রতিনিধি : স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন গর্বের বাকেরগঞ্জের পরিচালনা পর্ষদ গঠনের লক্ষে ৩৩ সদস্য বিশিষ্ট সম্মেলন প্রস্তুত কমিটি গঠন করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান এড. মোজাম্মেল হোসেন মোহনকে আহ্বায়ক ও নাট্যকার সাইফুর রহমান কাজলকে সদস্য সচিব করে ৩৩ সদস্য বিশিষ্ট এ কমিটি গঠন করা হয়। গর্বের বাকেরগঞ্জের সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির প্রধানতম কাজ হবে আগামি এক মাসের মধ্যে কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে সংগঠনের পরিচালনা পরিষদ গঠনের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা। মঙ্গলবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সংগঠনের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল হোসেন মোহন এ তথ্য নিশ্চিত করেন। গর্বের বাকেরগঞ্জের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন কাউন্সিলর খন্দকার জিয়াউর রহমান রিপন, মোঃ সিরাজুল ইসলাম, মোঃ এনামুল হক, যুগান্তরের স্টাফ রিপোর্টার আল আমিন মিরাজ, প্রকৌশলী মাকসুদুর রহমান, সাংবাদিক দানিসুর রহমান লিমন, মোঃ মামুন খান, সাবেক ছাত্রনেতা সাইদুর রহমান রুবেল, মোঃ সালাউদ্দিন সুমন, নেক্সট নিউজের চিফ রিপোর্টার মোঃ মিজানুর রহমান, যুগান্তর রিপোর্টার তালুকদার মোঃ জুয়েল, সাংবাদিক শফিকুল আলম নাসির, মোঃ দেলোয়ার হোসেন মোল্লা, পুস্তক প্রকাশক রেজাউল ইসলাম, সাংবাদিক মোঃ মাসুদ সিকদার, খন্দকার আজাদ, কেএম সাইফুল ইসলাম, মানবাধীকার কর্মী দীপ্তি রানী শীল, ব্যবসায়ী মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমুখ।


ভোলাহাটে রোগবালাই দমনে কৃষি দপ্তরের তৎপরতা

ভোলাহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি : ভোলাহাটে কৃষি ফসলের রোগবালাই দমনে মাসব্যাপী ব্যাপক তৎপরতা চলছে বলে দপ্তরের কর্তৃপক্ষ জানায়। সূত্রটি নিশ্চিত করে বলেন, চলতি আমন ধান মৌসমে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে উপজেলার মোট ১২টি ব্লকে, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা, উপ-সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা ও উপ-সহকারী কর্মকর্তাগণ রোগবালাই দমনসহ উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে কৃষকদের মাঝে মাসব্যাপী বিভিনড়ব ভাবে সচেতনতা বৃদ্ধি করা হচ্ছে। উপজেলা কৃষি দপ্তরের সকল কর্মকর্তা কর্মচারী নিরালস ভাবে মাসব্যাপী কৃষকের দ্বারে দ্বারে গিয়ে বিভিনড়ব সচেতনতামূল কর্মকা- অব্যহত রেখেছে। এর মধ্যে কৃষকের সচেতনতার জন্য উপজেলায় ৬ সদস্য বিশিষ্ট ২টি পৃক দল গঠন করা হয়েছে। দলগুলো কৃষকদের সাথে উঠান বৈঠক, অবহিতকরণ সভা, লিফলেট বিতরণ, মসজিদে মসজিদে গিয়ে প্রচারণা, কৃষকদের সরসরি প্রশিক্ষণ প্রদান, আলোক ফাঁদের মাধ্যমে পোকা সনাক্তকরণসহ বিভিনড়ব পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানায়। এ’ছাড়া ধানক্ষেতের মাঠে গিয়ে কৃষকদের ভালো ফলন পেতে রোগবালাই দমনের বিভিনড়ব দিক হাতেনাতে পরামর্শ দেয়া হয়। এ ব্যাপারে বিলভাতিয়া ধানক্ষেত মাঠের কৃষক আবদুল লতিফ বলেন, উপজেলা কৃষি অফিসের কর্মকর্তাগণ সরজমিন মাঠে গিয়ে রোগবালাইসহ ফসলের ভালো উৎপাদনের বিষয়ে পরামর্শ দিয়ে থাকেন। অপরদিকে উপজেলার পঞ্চানন্দপুর গ্রামের কৃষক সুলতান আলী, বড়গাছী গ্রামের গোলাম সানোয়ার, দলদলী গ্রামের মনিরুল ইসলাম, বালুটুংগি গ্রামের তরিকুল ইসলাম বলেন, উপজেলা কৃষি অফিসের কর্মকর্তা শরিফুল ইসলামসহ অন্যান্য কর্মকর্তাগণ সরাসরি মাঠে এসে কৃষকদের বিভিনড়ব বিষয়ে পরামর্শ দিয়ে থাকেন। তাদের পরামর্শে এ বছর রোপা আমনের বাম্পার ফলন আশা করা যাচ্ছে। আমরা কৃষকেরা কৃষি অফিসের কর্মকর্তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ বলে জানান। এদিকে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম বলেন, ভোলাহাট উপজেলায় রোপা আমন ধানে তেমন পোকার আμমণ না থাকায় এ বছর রোপা আমনের বাম্পার ফলন আশা করা যাচ্ছে।



নীলফামারীতে গাভী পালন ঋণ পেয়ে ৪’শ নারী সাবলম্বী হচ্ছের

সৈয়দপুর, নীলফামারী : নীলফামারীর ৪ ইউনিয়নের ৪’শ সুবিধা বঞ্চিত নারী জীবনযাত্রার মানউনড়বয়নে ১ লাখ ২০ হাজার করে টাকা ঋণ পাচ্ছেন। যা দিয়ে গাভী কিনে দারিদ্র হ্রাসকরণ ছাড়াও মহিলাদের ক্ষমতায়নে বিশেষ ভুমিকা রাখবে। ইতোমধ্যে ৩’শ জনকে প্রকল্পের আওতায় আনা হয়েছে। এর সুফল পেতেও শুরু করেছে এসব মহিলারা। সুত্র জানায়, নীলফামারী সদরের চওড়া বড়গাছা ও লক্ষ্মীচাপ ইউনিয়ন এবং ডিমলা উপজেলার ডিমলা সদর ও বালাপাড়া ইউনিয়নে ৪টি সমিতির মাধ্যমে সুবিধাভোগী নির্বাচন প্রμিয়া সম্পনড়ব করা হচ্ছে। চওড়া বড়গাছা ইউনিয়নে ‘চওড়া বড়গাছা নারী উনড়বয়ন সমবায় সমিতি’ ও লক্ষ্মীচাপ ইউনিয়নে ‘লক্ষ্মীচাপ নারী উনড়বয়ন সমবায় সমিতি’ এবং ডিমলা সদরে ‘ডিমলা নারী উনড়বয়ন সমবায় সমিতি’ ও বালাপাড়া ইউনিয়নে ‘দোয়েল নারী উনড়বয়ন সমবায় সমিতি’ এর মাধ্যমে ৩’শ জনকে নির্বাচিত করে ১ লাখ ২০ হাজার করে টাকা ঋণ প্রদান করা হয়েছে। যা দিয়ে উনড়বত জাতের গাভী কিনেছেন সুবিধাভোগী মহিলাগণ। ডিমলা উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের দোয়েল নারী উনড়বয়ন সমবায় সমিতির সদস্য জয়নব আকতার বলেন, আমার বাবা কৃষি কাজ করে সংসার চালান। বাবা-মা এবং ২ ভাই ২ বোন মিলে ৬জন আমরা। অনেক কষ্ট করে সংসার চালাতে হয় বাবাকে। আগের একটি গাভী ছিলো। নতুন করে এই সমিতিতে অর্ন্তভুক্ত হয়ে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা পেয়েছি। তা দিয়ে আরো একটি গাভী কিনে লালন পালন শুরু করেছি। এজন্য প্রাণী সম্পদ বিভাগ থেকে প্রশিক্ষণও নিয়েছি। আরেক উপকারভোগী ডিমলা সদর উপজেলার বাবুরহাট এলাকার নাজমা বেগম জানান, স্বামী বেলাল হোসেন চা’র দোকান করে পাঁচ জনের সংসার চালান। ঋণের টাকা নেয়ার ৭ মাস হলো। ১ লাখ টাকা দিয়ে একটি গরু কিনেছি। গাভী থেকে এখন প্রতিদিন ২২ কেজি দুধ পাচ্ছি। বাড়িতে কিছু খাওয়ার জন্য রেখে সবটুকু বিμি করে দেই। প্রতিদিন দুধ বিμি করে প্রায় ৯’শ টাকা করে পাচ্ছি। সমবায় বিভাগের এই উদ্যোগ বিশেষ কাজে এসেছে আমার। সুত্র জানায়, শতকরা ২ টাকা সার্ভিস চার্জের বিনিময়ে ঋণের টাকা ২ বছরের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে সুবিধাভোগীকে। সম্প্রতি মাঠ পর্যায়ে প্রকল্প এলাকা এবং সুবিধাভোগীদের বাড়ি পরিদর্শন করেছেন সমবায় অধিদপ্তর রংপুরের যুগ্ম নিবন্ধক ও পরামর্শক। জেলা সমবায় কর্মকর্তা আবদুস সবুর জানান, ঋণের টাকা দিয়ে গাভী কেনার এক বছর পর থেকে দৈনিক ২’শ টাকা কিস্তিতে টাকা পরিশোধ করতে হবে সুবিধাভোগীকে। তিনি বলেন, এই প্রকল্পের মাধ্যমে গ্রামের সুবিধাবঞ্চিত মহিলারা আর্থিক ভাবে সুবিধাপ্রাপ্ত হয়ে নিজেদেরকে


কর্মমুখী ও আর্থিক ভাবে স্বাবলম্ভী করে গড়ে তুলতে পারবেন। তিনি জানান, ৪ টি সমিতির মাধ্যমে এখন পর্যন্ত ৪’শ জনকে এই ঋণ দিতে পেরেছি, আরো ১’শ জনকে দেয়া হবে পর্যায়μমে। সুত্র জানায়, ‘উনড়বত জাতের গাভী পালনের মাধ্যমে সুবিধা বঞ্চিত মহিলাদের জীবন যাত্রার মান উনড়বয়ন প্রকল্প’ এর আওতায় দেশের ২৫টি জেলার ৫০টি উপজেলায় এই প্রকল্প পরীক্ষামুলক আকারে শুরু করেছে সমবায় অধিদপ্তর। সফল হলে প্রকল্প এলাকা আরো বৃদ্ধি পাবে।

বগুড়ায় টাকার দাবীতে এসআই’র বেধড়ক মারপিটে শিক্ষার্থী হাসপাতালে

বরিশালে দন্ডপ্রাপ্ত শিক্ষককে জেলহাজতে প্রেরণ

বরিশাল প্রতিনিধি : অবশেষে ভ্রাম্যমান আদালতের রায়ে আটক এক শিক্ষককে সাতদিনের কারাদন্ড ও দুই শিক্ষককে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে দন্ডপ্রাপ্ত শিক্ষককে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। এর আগে সোমবার চলমান জেএসসি পরীক্ষায় জেলার উজিরপুর উপজেলার ওই তিন শিক্ষক অসদুপায় অবলম্বনে সহায়তা করায় তাদের আটক করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ মাহাবুব উল্লাহ মজুমদার। জানা গেছে, সোমবার ইংরেজি পরীক্ষা চলাকালীন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট হারতা স্কুল এ- কলেজ কেন্দ্র পরিদর্শনে যান। এ সময় একটি কক্ষের দায়িত্বে থাকা চৌমোহনা আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ইংরেজি বিষয়ের সহকারী শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ পরীক্ষার্থীদের জন্য সাদাকাগজে প্রশেড়বর উত্তর লিখে দিচ্ছিলো।

গোদাগাড়ীর মাটিকাটায় নিন্মমানের সামগ্রী দিয়ে উন্নয়ন কাজ করার অভিযোগ

গোদাগাড়ী, রাজশাহী প্রতিনিধি : রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার একটি উনড়বয়নমূলক প্রকল্পের কাজ সিডিউল বহির্ভূত ভাবে নিন্মমানের সামগ্রী দিয়ে করার অভিযোগ উঠেছে। সচেতন এলাকাবাসী নিন্মমানের কাজের প্রতিবাদ জানিয়ে গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, গোদাগাড়ী উপজেলার মাটিকাটা ইউনিয়নের হরিশংকরপুর গ্রামের ৫ নং ওয়ার্ডে মাটিকাটা ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক ১ লক্ষ ৭৭ হাজার ৩০০ টাকার গ্রাম উনড়বয়নমূলক কাজ খাজা মাস্টারের পুকুরের প্যালাসাইটিং অল নির্মানের কাজ চলছে। গত তিন-চারদিন আগে কাজ শুরু হলে উনড়বয়ন কাজের প্রকল্প সভাপতি ও ৪,৫,৬ ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্য মর্জিনা খাতুন সম্পনড়ব নিন্মমানের ইটসহ অন্যান্য সামগ্রী নিন্মমানের দিয়ে প্যালাসাইটিং অল নির্মাণ করছে। এসব কাজের প্রতিবাদ করে এলাকাবাসী সিডিউল মোতাবেক কাজ করার অনুরোধ জানালে তিনি বলেন আমি এভাবেই কাজ করবো আপনাদের যা কিছু করার করতে পারেন আমি তা তোয়াক্কা করি না। এই বিষয়টি নিয়ে মাটিকাটা ইউপি চেয়ারম্যান আলী আজম তৌহিদের কাছে সরনাপনড়ব হলে তিনিও একই কথা বলেন বলে অভিযোগ জানান। এলাকাবাসী আরো জানান, যে ভাবে কাজ করা হচ্ছে দেখে মনে হচ্ছে ১ লাখ ৭৭ হাজার ৩০০ টাকার কাজ হলেও ওই মহিলা ইউপি সদস্য ৭০-৮০ হাজার টাকার কাজ করে নিজেই আত্মসাৎ করে নেওয়ার পায়তারা করছে। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানান যাতে সরকারী কাজের টাকা আত্মসাৎ না করতে পারে। মহিলা ইউপি সদস্য মর্জিনা খাতুনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, নিন্মমানের ইট দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে না ভাঁটা হতে ১ নং ইট দিয়েই কাজ করা হচ্ছে। কিছু দিন আগে ভাটার ইটে পানি পাওয়ার কারণে ইটের রং ফ্যাকাসে দেখাচ্ছে। তাছাড়া প্রকল্পের কাজটি দ্রুত শেষ দেখাতে হবে বলে জানান। তিনি আরো জানান, অভিযোগ কারিরা আমার নিকট চাঁদা দাবি করেছিলো তা না দেবার করণে এসব কাজ করছে। মাটিকাটা ইউপি চেয়ারম্যান আলী আজম তৌদিনের মোবাইল ফোনে কল করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। এই বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ শিমুল আকতার বলেন, নিন্মমানের কাজের অভিযোগের বিষয়টি আমি তদন্তে সাপেক্ষে দেখবো বলে জানান।

নন্দীগ্রামে ফুটবল প্রতিযোগিতায় পদ্মা সেতুর নামে চাঁদাবাজি

নন্দীগ্রাম, বগুড়া প্রতিনিধি : বগুড়ার নন্দীগ্রামে ফুটবল প্রতিযোগিতা উপলক্ষে পদ্মা সেতুর দোহাই দিয়ে চাঁদাবাজী অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার (০৫ নভেম্বর) বিকেলে উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নের কুমিড়া পন্ডিতপুকুর উচ্চবিদ্যালয় মাঠে এই প্রতিযোগীতার আয়োজন করা হয়েছে। জানা গেছে, টাইগার বহুমুখি যুব সমবায় সমিতির আয়োজনে ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মরহুম জালাল উদ্দিন মন্ডল স্মৃতি স্মরণে উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নের কুমিড়া পন্ডিতপুকুর উচ্চবিদ্যালয় মাঠে ফুটবল টুর্ণামেন্টের আয়োজন করা হয়। ফুটবল টুর্নামেন্ট উপলক্ষে গত এক সপ্তাহ আগে থেকে এলাকায় চলছে মাইকিং ও পোস্টারিং। ক্লাবের সভাপতি ও ভাটরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোরশেদুল বারী মোরশেদ মঙ্গলবার সকাল থেকে চেয়ারে বসে খেলা দেখার জন্য ৫০ টাকার টোকেন বিμি শুরু করেছেন তার লোকজন দিয়ে। আগত দর্শকদের জন্য ১ হাজার চেয়ারের ব্যবস্থা করা হয়েছে চেয়ারে বসে খেলা দেখা উপভোগ করতে ৫০ টাকার বিনিময়ে টোকেন কিনতে হচ্ছে। টোকেনে চেয়ার নাম্বার উল্লেখ ছাড়াও ক্লাবের সাহাযার্থে এবং পদ্মা সেতুর নাম উল্লেখ রয়েছে। এ নিয়ে এলাকায় মিশ্র প্রতিμিয়া দেখা দিয়েছে। ফুটবল প্রতিযোগিতার আয়োজক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোরশেদুল বারী মোরশেদের বক্তব্য জানার জন্য একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি। নন্দীগ্রাম থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ শওকত কবীর বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. শারমিন আখতার বলেন, এ ধরনের টোকেন বিμির কোন অনুমোদন দেয়া হয় নাই। আমাকে না জানিয়ে আয়োজকরা এটা করতে পারে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বরিশাল: বরিশাল সদর-৫ আসনে মহাজোট প্রার্থী কর্ণেল (অবঃ) জাহিদ ফারুক শনিবার নিজ নির্বাচনী এলাকায় গণসংযোগ করেন